৫ জন জনবল নিয়ে বাংলাদেশের রেকর্ড গড়েছেন কুষ্টিয়া জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর

0
1129

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলা অলটাইম নিউজ ডটকম,
আপন চৌধুরী,স্টাফ রিপোর্টার:-কুষ্টিয়া জেলাতে অল্পসংখ্যক জনবল নিয়ে মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়ে সারা দেশের জেলা শহর গুলাতে রেকর্ড গড়েছেন কুষ্টিয়া জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর।

নেই অস্ত্র নেই প্রয়োজন সংখ্যক জনবল তবুও থেমে নেই অভিযান। বলছি মাদকের ভয়াল থাবা থেকে দেশকে রক্ষা করার জন্য নিরলস ভাবে কাজ করে যাওয়া সহকারী পরিচালক মিজানুর রহমান নামের সাহসী এক যোদ্ধার কথা। মাদকের এই বিস্তার রোধকল্পে তিনি জেলার খোকসা থেকে দৌলতপুর পর্যন্ত প্রতিটি এলাকাতে বিভিন্ন ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।

কুষ্টিয়া জেলা মাদক প্রতিরোধ কমিটি নামের একটি কমিটিকে উৎসাহ দিয়ে প্রতিটি পৌরসভা, থানা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডে কাজ করে যাচ্ছে। প্রতিটা স্কুল ও কলেজে মাদক বিরোধী কমিটি করে তিনি মাদকের কুফল সম্পর্কে আলোচনা করে যাচ্ছেন।

এখন সাহসী দেশপ্রেমিক মিজানুর রহমান মাদক বিরোধী ফুটবল খেলা শুরু করেছে। প্রতিটি পাড়াতে গিয়ে মাদক বিরোধী সমাবেশ করে ব্যাপক আলোচনায় এসেছেন তিনি।

এখন গ্রামের সাধারন মানুষ মিজানুর রহমানের ডাকে সাড়া দিয়ে মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছে। এই সাহসী দেশপ্রেমিক এখন সকলের কাছে অনেক জনপ্রিয়।

সাহসী দেশপ্রেমিক মিজানুর রহমান জানুয়ারী থেকে অক্টোবর পর্যন্ত ১০ মাসে ৪৪১টি অভিযান চালিয়ে ১১০টি মামলা করেছেন। এর মধ্যে নিয়মিত মামলা ৬২টি, মোবাইল কোর্ট মামলা ৪৮টি। এই অভিযানে মোট আসামী হয় ১৩৮জন। তার মধ্যে আসামী গ্রেফতার হয় ১০৫ জন, পলাতক রয়েছে ৩৩ জন আসামী।

সাহসী দেশপ্রেমিক মিজানুর রহমানের উল্লেখযোগ্য অভিযানের মধ্যে কুষ্টিয়া মিরপুর থেকে ১ কেজি হেরোইন উদ্ধার করেন। যার মামলা নং-৯ তারিখ ২৪ জুলাই ২০১৭। কুমারখালী থেকে ১১শ পিচ ইয়াবা ও ৮ গ্রাম হেরোইন উদ্ধার হয়। যার মামলা নং-৮ তারিখ ৯ আগষ্ট ২০১৭। দৌলতপুর থেকে ৮শ গ্রাম হেরোইন উদ্ধার করে। যার মামলা নং-৪৫ তারিখ ১৯ অক্টোবর ২০১৭। মাদক উদ্ধার হয়েছে, ২ কেজি ২৩৬ গ্রাম হেরোইন, ২ হাজার ৫শ ৫৪ পিচ ইয়াবা, ১শত ৭৯ বোতল ফেন্সিডিল, ২৩ কেজি ৫শ ২৬ গ্রাম গাঁজা, ২শ ৩০ লিটার তারী, ৭ লিটার রেক্টিফাই স্পিরিট ও ৮ লিটার চোলায় মদ। যার আনুমানিক মূল্য ২ কোটি ৩৫ লক্ষ ৪৯ হাজার ২শ ২০ টাকা।

এ ব্যাপারে কুষ্টিয়া জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মিজানুর রহমানের সাথে কথা হলে তিনি বাংলা অলটাইম নিউজকে জানান, আমরা চাকুরি করতে এসেছি। আমাদের কাজ মাদক নিয়ন্ত্রণ করা এবং সাধারণ জনগণকে মাদকের কুফল সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি করা। মাদকের অবৈধ ব্যবহার রোধের জন্য দেশকে মাদকের ভয়াল থাবা থেকে বাঁচানোর জন্য আমাদের কাজ অবিরাম চলবে।

জেলা মাদক প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি হাসিবুর রহমান রিজু বাংলা অলটাইম নিউজকে বলেন, আমাদের কমিটি গঠনের শুরু থেকে মাদক বিরোধী বিভিন্ন কর্মকান্ডে মিজানুর রহমানের সার্বিক সহযোগীতা করে আসছে। তিনি এই অল্পসংখ্যক জনবল নিয়ে যেভাবে মাদকের ভয়াল থাবা থেকে কুষ্টিয়ার যুবসমাজকে রক্ষার জন্য কাজ করে যাচ্ছে এটি কুষ্টিয়া বাসীর জন্য একটি দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। তিনি একজন সৎ নিষ্ঠাবান ও দেশপ্রেমী অফিসার। কুষ্টিয়া জেলা মাদক প্রতিরোধ কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে গুরুত্বপুর্ন ভুমিকা রেখে যাচ্ছেন।

কুষ্টিয়া জেলা মাদক প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক সোহেল রানা বাংলা অলটাইম নিউজকে বলেন, আমরা মাদক প্রতিরোধের জন্য বিভিন্ন অঞ্চলে স্কুল কলেজে সচেতনতামূলক সভা সমাবেশ করেছি। মাদক উদ্ধোশিত এলাকাগুলোতে যুবসমাজকে একত্রিত করে মাদক বিক্রয় বন্ধ করাতে সক্ষম হয়েছি। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর আমাদের সার্বিক সহযোগিতা করেছে। সাধারন জনগন এগিয়ে এলে মাদক প্রতিরোধ করা সম্ভম।

সাংগাঠনিক সম্পাদক শাহারিয়া ইমন রুবেল বাংলা অলটাইম নিউজকে বলেন, আমাদের এই সংগঠনকে সাহসী দেশপ্রেমিক মিজানুর রহমান নিজের সন্তানের মত করে দেখেছে। আমরা রাত দিন ২৪ ঘন্টা যখন তাকে ডেকেছি তখনই পেয়েছি। তার অনুপ্রেরণায় আজ আমরা বিভিন্ন জায়গায় কমিটি গঠন করে মাদক নির্মূল করতে সক্ষম হতে চলেছি। তার সাফল্য আমাদের মাদক নির্মূলে একধাপ এগিয়ে নেয়া।

Leave a Reply