বাঙালিদের ভোজনপ্রিয়দের দই চিড়া আর আম উৎসবে মুখরিত ভালোবাসার কুষ্টিয়া

সারা বাংলা ডেস্ক: বাংলা অলটাইম নিউজ ডটকম: এস এম জামাল,কুষ্টিয়া :-দই-চিড়া, মুড়ি-মাখন-গুড়-নারকেল দিয়ে একসঙ্গে মিশিয়ে খাওয়ার একটা রীতি আছে বাঙালিদের। বিশেষ করে ভোজনপ্রিয়দের কাছে চিরচেনা খাবারের এই আয়োজনটা বেশ পরিচিত এবং মুখরোচক ।

বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠ মাস মূলত মধুমাস হিসেবেই আমাদের কাছে পরিচিত। আর এই মাসে সবার ঘরে আমের রস, চিড়া-মুড়ি, দই-গুড়, নারিকেল দিয়ে মেখে খাওয়ার একটা রীতি সেই যুগযুগান্তর ধরে চলে আসছে। তবে এই খাবারটি পরিবার, শিব জন, বন্ধুবান্ধবদের নিয়ে একসঙ্গে মজা করে খাবারের আয়োজন ছিলো ভিন্নরকম।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেসবুক এ্যক্টিভিট ‘ভালোবাসার কুষ্টিয়া’ নামক সংগঠন দই চিড়া ও আম উৎসবের আয়োজন করে।গতকাল শুক্রবার বিকেলে শহরের পুনাক ফুডপার্কে এ উৎসবে যোগ দেন নানান ধরনের মানুষ।

 

এর আগেই সংগঠনের সদস্যসহ রেজিষ্ট্রেশনকারী শুভাকাক্সখীরা একে একে হাজির হতে থাকে সেখানে।এসময় সেখানে অনেকেই সেলফি ও ছবি তোলায় মেতে ওঠে।

এই উৎসবের মুল আয়োজন চলে দই, চিড়া আর আম দিয়ে খাবার উপভোগ। আর যখন এই আয়োজন শুরু হয় তখন এক নতুনত্ব সৃষ্টি হয় উপস্থিত সকলের মাঝে।

সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সাহিত্যিক হাসান টুটুল বলেন, গ্রামীণ পরিবেশে বাঙালীদের দই চিড়া একটি অবিচ্ছেদ্দ অংশ। যদিও কালের পরিক্রমায়, এখন তা হারিয়ে যেতে বসেছে। তাই বর্তমান প্রজন্মকে জানান দিতেই দই চিড়া আর আম দিয়ে উৎসবের আয়োজন করে ভালোবাসার কুষ্টিয়া। তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের মধ্যে রাজশাহী-চাপাইনবাবগঞ্জের আম এক নম্বরে আছে। দেশ ছাড়িয়ে বিদেশেও রপ্তানী হচ্ছে এই সুমিষ্ট ফল। কিন্তু কুষ্টিয়াও পিছিয়ে নেই। রাজশাহীর পরেই কুষ্টিয়ার আম সুস্বাদু বলেও জানান তিনি।

এস এম জামাল তার অভিব্যক্ত প্রকাশ করতে গিয়ে তিনি বলেন, প্রায় ২০ বছর আগে মিষ্টির দোকানে গিয়ে দই চিড়া খেয়েছি। এতোদিন পর আজকের এই অনুষ্ঠানের মাধ্যমে আবার দই চিড়ার সাথে ফলের রাজা আম খেতে পেরে বেশ উপভোগ করছি।

নাদিরা খানম নামের এক স্কুলে শি¶ক জানালেন, আমার ছোটবেলা কেটেছে মোহিনী মিল এলাকায়। দেখতাম শহরের মানুষগুলো দই চিড়া খেতে মিলপাড়া এলাকায় আসতো। কারন সেই এলাকার দই চিড়ার জমজমাট ব্যবসা ছিলো। আমরা বান্ধবীদের সাথে নিয়ে মজা করে দই চিড়া খেতাম।

ভালোবাসার কুষ্টিয়ার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সাহিত্যিক হাসান টুটুলের সঞ্চালনায় স্মৃতিচারন করেন ব্যাংকার মনিরুজ্জামান, রোটারী ক্লাব অব কুষ্টিয়ার সেক্রেটারী আলিমুল হক সন্জু, সাবেক প্রেসিন্টে ওবাইদুর রহমান, জয়েন্ট সেক্রেটারী রাসেল পারভেজ, শি¶ক নাদিরা খানম, পাখি বিশ্লেষব এস আ্ই সোহেল, সাংবাদিক এস এম জামাল, লিটনউজ্জামান, সোহানুর রহমান, কবি ফাতেমা হক মুক্তামনি, পিংকী চৌধুরী, শাফিন সাদমান, জয়, লিজা, আল-আমিন,আবরার ফাহাদ, তানভীর আহমেদ, আবুজর, টুটুল রাজা,রিফাত,ওবায়দুল রহমান,রিনা ছায়া চৌধুরী ,রাকিব তুহিন,লিমা ও মৌসুমিসহ সংগঠনের অন্যান্য সদস্যরা।