দেশের মানুষ এখন আমাদের নিয়ে হাসাহাসি করে: রুবেল

ঝামেলা মেটাতে আদালতের দারস্থ হয়েছেন শিল্পীরা। সাধারণ সম্পাদকের চেয়ার নিয়ে রীতিমতো মল্লযুদ্ধে নেমেছেন জায়েদ খান ও নিপুণ।

এ নিয়ে দুই তারকাকে ঘিরে কাদা ছোড়াছুড়ি, কুৎসা রটানো এবং নানা ধরনের অভিযোগে উত্তপ্ত এফডিসিপাড়া।

এসব দেখে রীতিমতো অতিষ্ঠ একসময়ের অ্যাকশন হিরো মাসুম পারভেজ রুবেল। এ নায়ক জানালেন শিল্পী সমিতির নির্বাচনকে ঘিরে এফডিসিতে যে নোংরামি চলছে, তাতে দেশের মানুষ অভিনয়শিল্পীদের নিয়ে হাসাহাসি করছে।

এক গণমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে নায়ক রুবেল জানান, একটানা ১২ বছর শিল্পী সমিতির ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক ছিলেন তিনি। সাধারণ সম্পাদক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। কিন্তু তখন এমন নোংরামি দেখেননি।

রুবেল বলেন, ‘অনেকবার নির্বাচন করে আমার ভালো অভিজ্ঞতা হয়েছে। সেসব নির্বাচনে যা দেখেছি, সেই তুলনায় এবারের নির্বাচনের মতো এমন নোংরামি কোনো দিনও দেখিনি। যখন ক্রীড়া ও সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক ছিলাম, তখন আমি নির্বাচন না করলে ওই পোস্টে কেউ নির্বাচন করতেন না। সমিতির সাবেক সভাপতি হিসেবে আহমেদ শরীফ ভাইয়ের সঙ্গে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে কাজ করেছি। মান্নাসহ অনেকের সঙ্গে সমিতিতে কাজ করেছি। এবারও সবই ঠিক ছিল কিন্তু কোথায় যেন নোংরামি চরম আকার ধারণ করেছে। সারা দেশের মানুষ এখন আমাদের নিয়ে হাসাহাসি করে। আমি হাসাহাসির পাত্র হতে চাই না।’

এমন অস্বস্তির পরিবেশে থাকতে চান না জানিয়ে এ অভিনেতা অভিমানের সুরে বললেন, ‘চেষ্টা করব, আর কখনও এফডিসিতে পা না রাখতে।’

তিন দশকের বেশি সময় ধরে অভিনয় জগতে নিজে জড়িয়ে রাখা এ শিল্পী বলেন, ‘আমাদের চলচ্চিত্র ইন্ডাস্ট্রির উন্নয়ন আমি চাই। সে লক্ষ্যে সংগঠন এগিয়ে যাক। যে কোনো অবস্থান থেকে আমি শিল্পীদের স্বার্থে কাজ করে যাব। এটিই আমার জন্য সত্য। কিন্তু এখন চূড়ান্তভাবে কাদা ছোড়াছুড়ি হচ্ছে। এসব আরও বিব্রতকর পরিস্থিতি তৈরি করছে। এসব অবস্থায় আমি চেষ্টা করব এফডিসিতে আর পা না দিতে।’