নবাবগঞ্জে ধান চাষিরা চরম বেকায়দায় পড়েছে

তাজকিরাতুল হক তানভীর, স্টাপ রিপোর্টার দিনাজপুর:
দিনাজপুর জেলার নবাবগঞ্জ উপজেলার চাষিরা ধানের আবাদ করে চরম বেকায়দায় পড়েছে। একসাথে ধান কাটা এবং মাড়াই করা সেই সাথে বৃষ্টির বেগতিক অবস্থা। চরমহারে বেড়েছে মজুরীর দামও ফলে দিশেহারা হয়ে পড়েছে কৃষকরা।

উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়ন ঘুরে দেখা গেছে, দু-দিনের টানা বর্ষনে বৃষ্টির পানিতে ধানের জমি তলিয়ে গেছে। ধান পুরোপুরি পেঁকে যাওয়ায় জমিতে ধান ফেলেও রাখতে পারছেন না তারা। এ অবস্থায় হতাশ হয়ে বেশি দামে ধান কাটাতে এবং মাড়াতে বাধ্য হয়েছেন কৃষকরা। অপরদিকে বাড়ির উঠান ভিজে গিয়ে কর্দমাক্ত হওয়ায় পাকা সড়কে অথবা খেলার মাঠে ধান শুকাচ্ছেন কৃষকরা। ধান ভিজে যাওয়ার সুযোগকে সদ্ব্যবহার করছেন মৌসুমি ব্যবসায়ী, ধান ব্যবসায়ী ও ফড়িয়ারা। তারা কম দামে ধান কিনতে কৌশলে কৃষককে অনবরত ভূল বোঝাচ্ছেন।

১নং জয়পুর ইউনিয়নের তেপুকুরিয়া গ্রামের কৃষক
আবিদুল ইসলাম ও রতন মিয়া জানান, কয়েক ঘন্টার টানা বর্ষনে ধানের ক্ষেত তলিয়ে গেছে। তলিয়ে যাওয়া ধান কেটে আনা ও মাড়াই করতে অতিরিক্ত ২ হাজার টাকা বেশি দিতে হচ্ছে। বৃষ্টির আগে বিঘা প্রতি যেখানে সাড়ে ৪ হাজার টাকা ছিল, বর্তমানে তা ৬ হাজার টাকা হতে সাড়ে ৮ হাজার টাকা দিতে হচ্ছে। রোদ না থাকায় ওই ধান শুকাতে না পেরে কমদামে বিক্রি করতেছে অনেকে ।
রতন মিয়া জানান, বৃষ্টির কারনে অনেক ধান নষ্ট হয়ে গেছে। বিশেষ করে নদীর পার্শ্ববর্তী জমিগুলোতে বেশি ক্ষতি হয়েছে। এবার গতবারের চেয়ে বিঘাপ্রতি প্রায় ৩-৪ মন ধান কম হবে।
Alltimenews /razu