বাগেরহাট সদর হাসপাতালের টিকা কেন্দ্রে দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিতে শিক্ষার্থীদের ভীড়

ইমরান হোসেন, বাগেরহাট জেলা প্রতিনিধি: বাগেরহাটে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধী টিকার ২য় ডোজ নিতে শিক্ষার্থীদের ভীড় বাড়ছে টিকাদান কেন্দ্রেগুলোতে। শনিবার (২২ জানুয়ারি) সকাল থেকে বাগেরহাট সদর হাসপাতাল টিকাদান কেন্দ্রসহ জেলার বিভিন্ন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের টিকাদান কেন্দ্রে শিক্ষার্থীদের ভীড় ছিল চোখে পড়ার মত। শিক্ষার্থীদের ভীড় সামলাতে হিমশিম খেতে হয়েছে টিকাদানের সাথে সংশ্লিষ্টদের। শিক্ষার্থীদের দাবি প্রতিষ্ঠান কেন্দ্রীক আলাদা আলাদা দিন ও সময় নির্ধারণ করে দিলে ভীড় এড়ানো সম্ভব হত।
সকালে বাগেরহাট সদর হাসপাতাল টিকাদান কেন্দ্রের সামনে দেখা যায় লম্বা লাইনে দাড়িয়ে কয়েক হাজার শিক্ষার্থীসহ টিকা গ্রহনের জন্য অপেক্ষা করছেন। বিভিন্ন এলাকা ও প্রতিষ্ঠান থেকে এসেছেন তারা। সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই তাদের মাঝে। তবে কয়েক ঘন্টা অপেক্ষার পরেও টিকা দিতে পেরে খুশি শিক্ষার্থীরা।
শিক্ষার্থী বিজয় দে বলেন, সকাল থেকেই লাইনে দাড়িয়ে আছি। ১২টার দিকে টিকা দিতে পেরেছি। টিকা দেওয়ার পরে দুই ঘন্টা দাড়িয়ে থাকার ক্লান্তি ও বিরক্তি ভাব কেটে গেছে। আসাকরি ২য় ডোজ টিকার মাধ্যমে সৃষ্টি কর্তা আমাদের রক্ষা করবেন।
আরেক শিক্ষার্থী মুনিয়ারা আক্তার বলেন, টিকাদান কেন্দ্রে অনেক ভীড়। প্রতিষ্ঠান অনুযায়ী যদি টিকাদানের সময় বলে দেওয়া হত, তাহলে ভীড় এড়ানো যেত মনে বলে মনে করেন এই শিক্ষার্থী।
মেয়েকে টিকা দিতে নিয়ে আসা এক শিক্ষার্থীর বাবা রুহুল আমিন বলেন, শিক্ষার্থীদের টিকাদানের বিষয়ে স্বাস্থ্য বিভাগ আরও বেশি সচেতন হতে পারত। তাহলে অনাকাঙ্খিত ভীড় ও সমস্যা এড়ানো যেত।
টিকাদান কেন্দ্রে স্বেচ্ছাসেবকের দায়িত্বে থাকা বাগেরহাট রেডক্রিসেন্টের যুব প্রধান শরিফুল ইসলাম জুয়েল বলেন, সকাল থেকেই প্রচুর শিক্ষার্থীরা আসেন টিকা নিতে। শিক্ষার্থীরা নিয়ম মেনে লাইনে দাড়িয়ে টিকা গ্রহন করলেও স্থানীয় কিছু প্রভাবশালীরা এসে খুব ঝামেলা করে। তাদের কারণে টিকাদান কার্যক্রম ব্যহত হয়। প্রভাবশালীদের নিয়ম ভাঙ্গার ইচ্ছা ও অযাচিত হস্তক্ষেপের ফলে আরও বেশি দেড়ি হয় আমাদের।
বাগেরহাট সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. প্রদীপ কুমার বখসি বলেন, কোভিড-১৯ প্রতিরোধী টিকা দেওয়ার ক্ষেত্রে বাগেরহাট জেলা অনেক এগিয়ে রয়েছে। ইতোমধ্যে জেলার প্রায় ৬৩ ভাগ মানুষকে টিকা দেওয়া হয়েছে। আসাকরি এই সংখ্যাকে আমরা শতভাগে নিতে পারব। যারা টিকা নেননি তাদেরকে দ্রুত টিকা গ্রহনের অনুরোধ করেন তিনি।
বাগেরহাট সিভিল সার্জনের কার্যালয় সূত্রে জানাযায়,বাগেরহাট জেলায় ৬ষ্ট শ্রেনী থেকে এইচ এসসি পর্যন্ত ( ১২ থেকে ১৭ বছর ) বয়স পর্যন্ত ১লাখ ৫২ হাজার ৬শ ৪৪ জন শিক্ষার্থী টিকা গ্রহন করেছে। এই সংখ্যাকে শিক্ষার্থীদের টিকা গ্রহনের হার শতভাগ বলে দাবি করেছেন স্বাস্থ্য বিভাগ। অন্যদিকে ২২ জানুয়ারি বিকেল পর্যন্ত ৪০হাজার ২শ ৮৯ জন শিক্ষার্থীকে টিকা দেওয়া হয়েছে। যা ১ম ডোজ গ্রহনকারীদের শত করা ২৯দশমিক ৪৮ ভাগ।
এছাড়া বাগেরহাট জেলায় প্রাপ্ত বয়স্ক ১০ লাখ ৯৬ হাজার ১শ ১৭ জনকে প্রথম ডোজ ( শতকরা ৬২.৮৪ শতাংশ ) দেয়া হয়েছে । যা মোট জনসংখ্যারি ৬২ দশমিক ৪৯ শতাংশ। প্রাপ্ত বয়স্কদের মধ্যে দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ৭ লাখ ২৩ হাজার ৮ শ ১৬ জন। বুষ্টার ডোজ নিয়েছেন ২০ হাজার ১শ ১২জন।