লকডাউনে ব্যস্ততম সড়কগুলো জনশূন্য!

হঠাৎ করেই করোনা ভাইরাসে মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। আর তাই সংক্রমণ প্রতিরোধে ১৪ এপ্রিল থেকে সারা দেশে এক সপ্তাহের জন্য সরকার ঘোষিত সর্বাত্মক লকডাউন কার্যকরে কঠোর অবস্থানে রয়েছে প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। ফলে বিভিন্ন ব্যস্ততম এলাকা এবং সড়ক জনমানবশূন্য ও ফাঁকা হয়ে গেছে। তবে অনেক স্থানে স্বাস্থ্যবিধি না মানাসহ লকডাউন অমান্য করায় জরিমানা আদায় করা হয়েছে।

খুলনা: লকডাউনের দ্বিতীয় দিন বৃহস্পতিবারও ফাঁকা ছিল খুলনা মহানগরীর রাস্তা। তবে বিধিনিষেধের আওতামুক্ত কিছু ওষুধ ও মুদি দোকান ছাড়া বন্ধ রয়েছে সব ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ও দূরপাল্লার যানবাহন। সাধারণ মানুষের জীবনযাপনও অনেকটা নিয়ন্ত্রিতভাবে চলছে।

লক্ষ্মীপুর: লক্ষ্মীপুরের বিভিন্ন রাস্তায় যানবাহন না থাকলেও বেশকিছু রিকশা-ভ্যান ও মোটরসাইকেল চলছে। রমজানে কঠোর লকডাউনে বিভিন্ন অজুহাতে যেসব মানুষ বাড়ির বাইরে বের হচ্ছেন, তাদের পুলিশি জেরার মুখে পড়তে হচ্ছে। ফলে লক্ষ্মীপুরের বিভিন্ন রাস্তা জনশূন্য রয়েছে। জেলা প্রশাসক মো. আনোয়ার হোছাইন আকন্দ জানান, লকডাউন বাস্তবায়নে জেলা প্রশাসন সচেষ্ট রয়েছে।

চাঁদপুর: চাঁদপুর জেলার সর্বত্র ১৪ এপ্রিল সকাল থেকে সর্বাত্মক লকডাউন পালন করা হচ্ছে। জেলা ও উপজেলা প্রশাসন এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর করা নজরদারিতে চাঁদপুর শহর থেকে কাউকে বের হতে ও আসতে দেওয়া হচ্ছে না। একান্ত প্রয়োজনে কাগজপত্র দেখার পর ছাড় দেওয়া হচ্ছে। শহরের প্রতিটি হাটবাজার ও বিপণিবিতান বন্ধ রয়েছে। বাস, ট্রেন, যাত্রীবাহী লঞ্চসহ সব প্রকার যানবাহন চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ রয়েছে।

নওগাঁ: নওগাঁয় কড়াকড়িতে পালিত হচ্ছে লকডাউন। বুধবার সকাল থেকে জেলা শহরের লকডাউনের আওতাভুক্ত সব দোকান বন্ধ রয়েছে। আন্ত ও দূরপাল্লার রুটে ভারী যানবাহন চলছে না। ফলে রাস্তা, বাজার এলাকায় লোকজন না থাকায় ফাঁকা দেখা গেছে।

জয়পুরহাট: জয়পুরহাটে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হওয়া নিষেধ থাকলেও নিম্নআয়ের অনেকে রাস্তায় নেমেছেন। ভারী যানবাহন না থাকলেও সড়কে বেশকিছু রিকশা-ভ্যান ও মোটরসাইকেল চলাচল করতে দেখা গেছে।

গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী): দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় বৃহস্পতিবার দুপুরে দেখা গেছে, ঘাট এলাকায় নেই কোনো যানবাহন। যান ও জনমানবশূন্য নিষ্প্রাণ দৌলতদিয়া ঘাট এলাকা। এছাড়া দৌলতদিয়া ঘাট থেকে ১২ কিলোমিটার অদূরে গোয়ালন্দ মোড়ে গিয়েও দেখা গেছে একই চিত্র। ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক ও দৌলতদিয়া-কুষ্টিয়া আঞ্চলিক মহাসড়কেও নেই কোনো গাড়ি। গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম বলেন, যেহেতু ঘাটটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ তাই এদিকে বিশেষ নজর দিচ্ছি। বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া ঘাটের সহকারী ব্যবস্থাপক ফিরোজ শেখ জানান, ঘাটে সবগুলো ফেরি নোঙর করা রয়েছে। জরুরি অ্যাম্বুলেন্স ছাড়া সব ধরনের সেবা বন্ধ রেখেছি।

নাগেশ্বরী (কুড়িগ্রাম): নাগেশ্বরী শহরের রাস্তা রয়েছে অনেকটা ফাঁকা। সাধারণ যানবাহন চলাচল করছে না। জরুরি পণ্য পরিবহনে কিছু যান চলাচল করতে দেখা গেছে। নাগেশ্বরী থানার ওসি রওশন কবীর জানান, লকডাউন কার্যকরে মাঠে কাজ করছি।

ইন্দুরকানী (পিরোজপুর): ইন্দুরকানীতে সামাজিক দূরত্ব মানছেন না হাটবাজারের ক্রেতা-বিক্রেতারা। বুধবার সকাল থেকে সারা দিন উপজেলার প্রায় সব বাজারে ক্রেতা-বিক্রেতার ভিড় ছিল লক্ষণীয়।

চৌগাছা (যশোর): চৌগাছা শহরের সব মার্কেট, বিপণিবিতান ও দোকান বন্ধ দেখা গেছে। লকডাউন থাকায় শহরে কোনো যানবাহন তেমন চলেনি। এদিকে সীমিত পরিসরে ব্যাংক খোলা থাকলেও মানুষের উপস্থিতি কম দেখা গেছে।

ছাগলনাইয়া (ফেনী): ছাগলনাইয়া পৌর শহরে কঠোরভাবে চলছে লকডাউন এবং শহরের বাইরে চলছে ঢিলেঢালাভাবে। বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে।

রাণীনগর (নওগাঁ): রাণীনগরে কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে উপজেলার মাঠে-ময়দানে সরব প্রশাসন।

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল): ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের মির্জাপুরের মোড়ে মোড়ে তল্লাশি করছে পুলিশ। সেই সঙ্গে বঙ্গবন্ধু সেতু জাতীয় মহাসড়কের বিভিন্ন পয়েন্টেও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা যানবাহনে চেকিং ব্যবস্থা জোরদার করেছে।

সুজানগর (পাবনা): সুজানগরে নিত্যপণ্যের দোকান এবং জরুরি সেবাদানের সঙ্গে সংশ্লি¬ষ্ট প্রতিষ্ঠান ছাড়া সব ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার নির্দেশ দিলেও উপজেলার সব দোকান খোলা রয়েছে। সেই সঙ্গে পাবনা-সুজানগর সড়কে বাস চলাচল বন্ধ থাকলেও অন্যান্য যানবাহন যথারীতি চলছে।

মুরাদনগর (কুমিল্লা): উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় বুধবার সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে অভিযান পরিচালনা করা হয়। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অভিষেক দাশ ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে নেতৃত্ব দেন। এ সময় লকডাউন উপেক্ষা করে দোকান খোলা রাখা, মাস্ক না পরাসহ বিভিন্ন অপরাধে ২৭ হাজার ১০০ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

লোহাগাড়া (চট্টগ্রাম): লোহাগাড়ায় বুধবার সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান পরিচালনা করে। এ সময় স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করে দোকান খোলা রাখা ও মাস্ক না পরায় ১৭ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।
গলাচিপা (পটুয়াখালী): গলাচিপায় বৃহস্পতিবার লকডাউনে স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘন করায় বিভিন্ন স্থানে ভ্রাম্যমাণ আদালত ছয় জনকে ২২ হাজার টাকা জরিমানা করে। পাশাপাশি ১০০ ব্যক্তির মধ্যে বিনা মূল্যে মাস্ক বিতরণ করা হয়েছে।

পাইকগাছা (খুলনা): পাইকগাছায় তেমন কোনো অভিযান ছাড়াই শতভাগ লকডাউন কার্যকর হচ্ছে।

চাটমোহর (পাবনা): চাটমোহরে সর্বাত্মক লকডাউন চলছে। বৃহস্পতিবার পৌর শহরসহ উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে লকডাউন বাস্তবায়নে প্রশাসনের কর্মকর্তাদের পাশাপাশি পুলিশের তৎপরতা লক্ষ্য করা গেছে।