শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি আরও দুসপ্তাহ বাড়ল

অলটাইম ডেক্স:
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি আবারও বাড়ল। দুই সপ্তাহের জন্য এই ছুটি বাড়ানো হচ্ছে। করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার ঊর্ধ্বমুখী থাকায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এক ভিডিও বার্তায় শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এ তথ্য জানিয়েছেন। স্বামী অ্যাডভোকেট তৌফিক নেওয়াজ করোনা আক্রান্ত হওয়ার পরে শিক্ষামন্ত্রী আইসোলেশনে আছেন। সেখান থেকে তিনি এই ভিডিও বার্তা পাঠান।

এ প্রসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘সারা দেশে করোনা সংক্রমণের শতকারা হার ৩০ শতাংশের কাছাকাছি। এই পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে বিশেষজ্ঞদের পরামর্শক্রমে সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে, আমাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শ্রেণিকক্ষের পাঠদান বন্ধের সময়সীমা আরও দুসপ্তাহ বাড়ানো হবে।’

তিনি এ প্রসঙ্গে আরও বলেন, ‘আমি আশা করব, আমরা সবাই যথাযথভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলব। এর মাধ্যমে করোনা সংক্রমণের হার কমে আসবে। আর এর মাধ্যমে খুব শিগগিরই আমাদের শিক্ষার্থীদেরকে শ্রেণিকক্ষে স্বাভাবিক পাঠদানের জায়গায় নিয়ে যেতে পারব।’

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন যুগান্তরকে বলেন, বিদ্যমান পরিস্থিতিতে ছুটি বাড়নো হয়েছে। শিক্ষামন্ত্রী যে ঘোষণা দিয়েছেন সেটির অনুসরণে প্রাথমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেও সরাসরি পাঠদান বন্ধ থাকবে। তবে এ সময়ে অনলাইন প্ল্যাটফর্মে পাঠদান কার্যক্রম চলবে।

একই কারণে বর্তমানে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ১৬ দিনের সাধারণ ছুটি চলছে। ২১ জানুয়ারি রাজধানীর জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডে (এনসিটিবি) এক অনুষ্ঠান থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময়ে শিক্ষামন্ত্রী স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসা ছুটি দেওয়ার সিদ্ধান্তের কথা জানান। সেটি অনুযায়ী ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ছুটি আছে এসব প্রতিষ্ঠানে। ছুটি শেষ হওয়ার আগেই বুধবার ফের ছুটির ঘোষণা এল।

করোনার প্রার্দুভাবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্রথম ছুটির ঘোষণা আসে ২০২০ সালের ১৭ মার্চ। তখনও দুই সপ্তাহের জন্য ছুটি ঘোষণা করা হয়েছিল। কিন্তু করোনার ডামাডোলে ২৩ দফায় সেই ছুটি বাড়াতে হয়, যা গড়ায় ৫৪১ দিনে। এরপর গত ১২ সেপ্টেম্বর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের দ্বারন্মোচন হয়। কিন্তু চার মাস না পেরোতেই ফের বন্ধ করতে হলো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

এ প্রসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি ইতোপূর্বে বলেছেন, হঠাৎ করেই শিশুদের মধ্যে সংক্রমণ দেখা দিয়েছে। এ কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।