সার্চ কমিটির আজকের বৈঠকে যেসব বিষয়ে সিদ্ধান্ত হতে পারে

দ্বিতীয় দফায় আজ আবারও বসছে সার্চ কমিটি। বিকাল সাড়ে ৪টায় সুপ্রিমকোর্টের জাজেস লাউঞ্জে কমিটির দ্বিতীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার নিয়োগে নাম সুপারিশের জন্য গঠিত অনুসন্ধান (সার্চ) কমিটির প্রথম বৈঠক হয় ৬ ফেব্রুয়ারি।

আজকের বৈঠকে সভাপতিত্ব করার কথা রয়েছে বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের। হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি এসএম কুদ্দুস জামান, মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক মুসলিম চৌধুরী, সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) চেয়ারম্যান সোহরাব হোসাইন, সাবেক নির্বাচন কমিশনার মুহাম্মদ ছহুল হোসাইন এবং কথাসাহিত্যিক অধ্যাপক আনোয়ারা সৈয়দ হকের আজকের বৈঠকে উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও নির্বাচন কমিশনার পদে নিয়োগ পেতে প্রায় একশজন আগ্রহী ইতোমধ্যে নাম জমা দিয়েছেন। সার্চ কমিটি আহবানের একদিনের মধ্যেই বিপুল সাড়া পাওয়া গেছে। সোমবার প্রথম দিনই মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের ওয়েবসাইটে এবং সচিবালয়ের গেটে এসে জীবন বৃত্তান্তসহ নিজেদের নাম জমা দেন তারা।

আগ্রহীদের মধ্যে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ আছেন বলে জানা গেছে। এছাড়া ইসিতে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলোর কাছে আলাদাভাবে চিঠি দিয়ে বা টেলিফোন করে নাম চাওয়া হতে পারে। আজকের বৈঠকে বিষয়টি চূড়ান্ত হওয়ার সম্ভাবনা আছে।

এছাড়া আগামী শনি ও রোববার কমিটি তিন দফায় বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে বসবেন। যাদের সঙ্গে সভা হবে তাদের নামও আজ চূড়ান্ত হতে পারে। তবে করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় অতিথি তালিকা ছোট রাখা হবে।

যোগ্যদের নিয়ে ইসি গঠনের জন্য রোববার রাতে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলসহ আগ্রহীদের কাছে নাম আহবান করে সার্চ কমিটি। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ এ সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। এতে আগামী ১০ ফেব্রুয়ারি বিকাল ৫টার মধ্যে নাম পাঠানোর কথা বলা হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার থেকেই মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের নির্দিষ্ট ঠিকানায় নাম আসতে শুরু করেছে।

বিজ্ঞপ্তিতে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলোর কাছে সর্বোচ্চ ১০ জনের জীবনবৃত্তান্তসহ নামের তালিকা চাওয়া হয়। কিন্তু একাধিক রাজনৈতিক দল নাম পাঠানোর জন্য কমিটির কাছ থেকে আনুষ্ঠানিক আমন্ত্রণের অপেক্ষায় আছে। এ ধরনের খবর পেলে রাজনৈতিক দলের নেতাদের সম্মানে টেলিফোনে বা হাতে হাতে চিঠি পৌঁছে দিয়ে নাম চাওয়ার কথা ভাবছেন কমিটির সদস্যরা।

এ বিষয়ে আজ মঙ্গলবার সার্চ কমিটির দ্বিতীয় বৈঠকে সিদ্ধান্ত হতে পারে। কমিটির এক সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, রাজনৈতিক দলগুলোতে গুরুত্বপূর্ণ নেতারা আছেন। তাদের প্রতি একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেই দায়িত্ব শেষ করা যায় না। দ্বিতীয় বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হবে। সবাই একমত হলে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলোকে আনুষ্ঠানিকভাবে নাম পাঠানোর জন্য বলা হবে। সেক্ষেত্রে নেতাদের ফোন করে বা চিঠি দিয়ে অনুরোধ জানানো হতে পারে।

রোববার প্রথম বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম জানান, গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব, নির্বাচন সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞ ও সুশীল সমাজের সঙ্গে তিন ধাপে তিনটি বৈঠকে বসবে সার্চ কমিটি। জানা গেছে, প্রথম সভা হবে ১২ ফেব্রুয়ারি বেলা ১১টায়, চলবে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত। একইদিন দুপুর পৌনে ১টা থেকে দুপুর সোয়া ২টা পর্যন্ত দ্বিতীয় বৈঠক হবে। তৃতীয় বৈঠকটি হবে ১৩ ফেব্রুয়ারি বিকাল সোয়া ৪টা থেকে বিকাল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত।

নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনের জন্য সার্চ কমিটির হাতে সময় আছে আগামী ২৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। এদিকে বর্তমান নির্বাচন কমিশনের মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি।