৫ বছর বয়সী শিশুকে হলুদ ক্ষেতে ধর্ষন মামলায় ধর্ষকের সাজা যাবৎজীবন

ইমরান হোসাইন, ফুলবাড়ি (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:
দিনাজপুরের পার্বতীপুরে চাঞ্চল্যকর ৫ বছরের শিশু ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার ঘটনায় এক আসামীর যাবৎ জীবন কারাডন্ড একই সাথে ২০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ৬ মাসের কারাদন্ডের রায় প্রদান করেছে আদালত।

দণ্ডপ্রাপ্ত আসামী পার্বতীপুর উপজেলার শিংগীমারী তকেয়াপাড়া (জমিরহাট) গ্রামের মৃত জহির উদ্দীনের ছেলে সাইফুল ইসলাম।

অপরাধ প্রমানীত না হওয়ায় এই মামলায় অপর আসামী আফজাল হোসেন কবিরাজকে বেকসুর খালাস দিয়েছে আদালত। খালাসপ্রাপ্ত আফজাল হোসেনও একই এলাকার বাসিন্দা।

সোমবার (১০ জানুয়ারি) দুপুরে দিনাজপুর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ শরীফ উদ্দিন আহমেদ এই রায় ঘোষণা করেন।

রায়ের বিষয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিশেষ পিপি এ্যাডঃ তৈয়বা বেগম জানান, করোনার কারণে রায় প্রদানে কিছুটা বিলম্ব হয়েছে। মামলার প্রধান আসামীর বিরুদ্ধে স্বাক্ষ্য প্রমানে দোষ প্রমানীত হওয়ায় বিজ্ঞ বিচারক তাকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড প্রদান করেছে আদালত। এই রায়ে আমরা সন্তুষ্ঠ।

এই রায়ের প্রতিক্রিয়া জানাতে ওই শিশুর বাবার সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আমার মেয়ের সাথে যে ধরনের ঘটনা ঘটেছে, আমি চাইনা সেটা যেন আর কারো মেয়ের সাথে ঘটে। এই রায়ে খুশি তবে তার ফাঁসির আদেশ হলে আমি বেশি খুশি হতাম। তার ফাঁসির আদেশ হলে এধরণের ঘটনা আর পুনরায় ঘটাতে ভয় পাইত, দশবার চিন্তা করত। আমার মেয়ে এখনও অসুস্থ্য। তাকে প্রতিনিয়তই চিকিৎসা প্রদান করতে হচ্ছে।উল্লেখ্য, গত ২০১৬ সালের ১৮ অক্টোবর দুপুরে খেলতে বাইরে গেলে রহস্যজনকভাবে নিখোজ হয় পার্বতীপুর উপজেলার জমিরের হাট তকেয়া পাড়া এলাকার ৫ বছর বয়সী শিশু কন্যা পূজা। খোজাখুজি করে না পেয়ে রাতে পার্বতীপুর মডেল থানায় একটি সাধারন ডায়েরী করে পূজার বাবা (সুবল চন্দ্র দাস)।

পরের দিন সকালে পূজাকে বাড়ির পার্শ্ববর্তী হলদী ক্ষেত থেকে অসুস্থ্য অবস্থায় উদ্ধার করা হয় এবং রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় ২০ অক্টোবর রাতে পুজার বাবা পার্বতীপুর থানায় একই গ্রামের জহির উদ্দিনের ছেলে সাইফুল ইসলাম ও আফজাল হোসেনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। ২৪ অক্টোবর সন্ধ্যায় আসামী সাইফুল ইসলামকে গ্রেফতার করা হয়। এদিকে ওই দিন সন্ধ্যায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য পুজাকে স্থানান্তরিত।