বাংলাদেশ আগামী ২০৩০ সালের মধ্যে উন্নয়নশীল রাষ্ট্রে পরিণত হবে

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু বলেছেন, ২০৩০ সালের মধ্যে বাংলাদেশ একটি উন্নয়নশীল রাষ্ট্রে পরিণত হবে। সারা বিশ্ব আজ বাংলাদেশকে চেনে শেখ হাসিনার বাংলাদেশ হিসেবে।

তিনি আধুনিক সোনার বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। যার সঠিক নির্দেশনায় দেশের গ্যাস ও বিদ্যুতের সমস্যা দূর হচ্ছে। বিগত বিএনপি, জামায়াত সরকারের আমলে যেটা সম্ভব হয়নি আমাদের প্রধানমন্ত্রীর উদ্যোগে আওয়ামী লীগ সরকারের কারণে তা সম্ভব হয়েছে।

আজ শনিবার বিকেলে কেরানীগঞ্জ মহিলা ডিগ্রি কলেজ মাঠ প্রাঙ্গণে আগানগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিকী সম্মেলন ২০১৯ উপলক্ষে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে তিনি এ কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, বাংলাদেশ আজ সঠিক নেতৃত্বে এগিয়ে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিক নির্দেশনায় আওয়ামী লীগ সরকারের নের্তৃত্বে দেশকে সঠিকভাবে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রয়েছে।

বিএনপি জামায়েত জোট সরকারের আমলে বিদ্যুতের জন্য মানুষ রাজপথে নেমে এসেছিল।  কিন্তু আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর বিদ্যুতের জন্য কেউ রাস্তায় নেমে আসেনি।

তিনি বলেন,  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্বাচিত হয়ে আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের পরপরই দেশের বিদ্যুতের ঘাটতি অনেকাংশে কমিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছি।

দেশের উন্নয়নের অন্যতম মাধ্যম হলো বিদ্যুৎ। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে এ বিষয়টি নজরে রেখেই বিদ্যুৎ ব্যবস্থাকে আরো এগিয়ে নিতে সোচ্ছার।

ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক ও আগানগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক আসরারুল হাসান আশুর সভাপতিত্বে এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন কেরানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক শাহীন আহমেদ।

সম্মেলনে প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য দেন মীর আসাদ হোসেন টিটু জাকির আহমেদ, জিনজিরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাকুর হোসেন সাকু, আগানগর ইউপি চেয়ারম্যান হাজী মো. জাহাঙ্গীর শাহ খুশী, ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক মুজাহিদুল ইসলাম মামুন, দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা যুবলীগের সভাপতি মাহমুদ আলম, কেরানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সাহিদুল হক সাইদ, কেরানীগঞ্জ আঞ্চলিক শাখা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মুসলিম ঢালী, কেরানীগঞ্জের প্রবীণ ফটো সাংবাদিক কালিম সান্টু প্রমুখ।