বগুড়ায় ধুনটের ১০ ইউপিতে চেয়ারম্যান হলেন যারা

সাবিক ওমর সবুজ,বগুড়া প্রতিনিধিঃ

তৃতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে বগুড়ার ধুনট উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বেসরকারি ভাবে ১০ জন নির্বাচিত হয়েছেন। এরমধ্যে আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী ৪জন এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী ৬ জন। রোববার রাত ১০টার দিকে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোকাদ্দেছ আলী এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

উপজেলার ধুনট ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত এসএম মাসুদ রানা (নৌকা) পেয়েছেন ৯ হাজার ৯৯ ভোট, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী স্বতন্ত্র প্রার্থী মোস্তাফিজুর মন্টু (মোটর সাইকেল) পেয়েছেন ৬ হাজার ৭২৭ ভোট। এলাঙ্গীতে আওয়ামী লীগ মনোনীত তোজাম্মেল হক (নৌকা) পেয়েছেন ৩ হাজার ৭২৪ ভোট, তার নিকটতম প্রতিদ্ব›দ্বী শামছুদ্দোহা জিএম সম্্রাট পেয়েছেন ৩ হাজার ৫৮৩ ভোট। নিমগাছিতে সোনিতা নাসরিন (নৌকা) পেয়েছেন ৫ হাজার ৪৮০ ভোট, তার নিকটতম প্রতিদ্ব›দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী রুহুল আমীন মাসুদ (অটোরিক্সা) পেয়েছেন ৪ হাজার ৭৮৭ ভোট। কালেরপাড়ায় স্বতন্ত্র প্রার্থী সাজ্জাদ হোসেন শিপন (মোটর সাইকেল) পেয়েছেন ৮ হাজার ৮৩৭ ভোট, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হারেজ উদ্দিন (নৌকা) পেয়েছেন ৬ হাজার ৯০০ ভোট। চিকাশিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী জাকির হোসেন জুয়েল (মোটর সাইকেল) পেয়েছেন ৪ হাজার ১৭৪ ভোট, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি স্বতন্ত্র প্রার্থী আরিফুর রহমান (ঘোড়া) পেয়েছেন ৩ হাজার ৭৩০ ভোট। গোসাইবাড়িতে স্বতন্ত্র প্রার্থী মাসুদুল হক বাচ্চু (ঘোড়া) পেয়েছেন ৫ হাজার ১০১ ভোট, তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আওয়ামী লীগ মনোনীত সামসুল বারী (নৌকা) পেয়েছে ৪ হাজার ৫৩২ ভোট। ভান্ডারবাড়িতে স্বতন্ত্র প্রার্থী বেলাল হোসের বাবু (মোটর সাইকেল) পেয়েছেন ৫ হাজার ৯৬২ ভোট, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি স্বতন্ত্র প্রার্থী আতিকুল করিম আপেল পেয়েছেন ৩ হাজার ৮১৩ ভোট। গোপালনগরে স্বতন্ত্র প্রার্থী আনোয়ারুল ইসলাম (আনারস) পেয়েছেন ১১ হাজার ৭৫৮ ভোট, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী শাহ আলম (নৌকা) পেয়েছেন ৩ হাজার ৬৭৪ ভোট। মথুরাপুরে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হাসান আহম্মেদ জেমস মল্লিক (নৌকা) পেয়েছেন ১১ হাজার ২২২ ভোট, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি স্বতন্ত্র প্রার্থী শফিকুল ইসলাম (আনারস) পেয়েছেন ৬ হাজার ৭৬৪ ভোট। চৌকিবাড়িতে স্বতন্ত্র প্রার্থী হাসানুল করিম পুটু (আনারস) পেয়েছেন ৭ হাজার ৪২৬ ভোট, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আওয়ামী লীগ মনোনীত কুদরত-ই-খুদা জুয়েল (নৌকা) পেয়েছেন ৫ হাজার ২১৭ ভোট।

উল্লেখ্য, উপজেলার ১০ টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪৯ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দিতা করেন। এ উপজেলায় মোট ভোটারের সংখ্যা ২ লাখ ২৬ হাজার ৩৭৫ জন।